অমানুষের ভালোবাসা

alo

অমানুষের-ভালোবাসা

তোমার সাথে বিয়ের রাতে-
আকাশে একটা আস্তো রুটির মত চাঁদ উঠবে, ভরা পূর্ণিমা।
জানালার পর্দাটা সরিয়ে দেব,
জানালার ওপারের চাঁদটা উঁকি দিয়ে আমাদের গল্প শুনবে।
চাঁদনী রাতে পূর্নিমার আলোতে,
আমার কোলে তুমি মাথা রাখবে।
তোমাকে ঘেরা আমার স্বপ্নগুলো-
তোমার সাথে ভাগাভাগি করে নেব।
ক্লান্ত তুমি হঠাৎ শ্রান্ত হয়ে,
আমার কোলেই ঘুমিয়ে পড়বে।
আমি তোমার ঘুমন্ত ক্লান্ত চাহনীর দিকে-
আপলক চোখে চেয়ে থাকব।
তোমার প্রতিটা নিঃশ্বাসে আমি প্রেম খুঁজবো।
আমার কোলে বাচ্চাদের মত তোমার ঘুমন্ত শরীর,
আমি তোমার মাথায় হাত বুলিয়ে দেব।
আমি তোমার স্পর্শে তোমাকে অনুভব করবো,
তোমার রূপের আয়োজন অবলোকন করবো।
তোমার এই আয়োজনের প্রতিটা কিন্তু শুধু আমারই জন্য।

এমনই তো হবার কথা ছিল।
অথচ বিয়ের রাতে তোমাকে যখন পাশে পেলাম,
ভুলে গেলাম তুমিই আমার প্রেয়সী।
বীরপুরুষ আমি বাঘের মতো-
পৌরুষত্ব দেখানোই ব্যাস্ত হয়ে গেলাম,
অবশেষে ক্লান্ত শরীরে নিজেই ঘুমিয়ে গেলাম।
তুমি একা একা ওই একাকি চাদের দিকেই তাকিয়ে থাকলে।
আমি কি সত্যিই তাহলে তোমাকে ভালোবেসেছিলাম?
চিৎকার করে বলতে ইচ্ছা করছে-
ধিক্কার দাও এ ভালোবাসাকে, ধিক্কার দাও আমায়।
ঘৃন্যা করো আমায়, একবারের জন্য হলেও।

শাহরিয়ার সোহাগ

Share


Author

সপ্তবর্ণা

Comment Now

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *